১০০ বছরে ৪ বার! নারীদেহে আটকে গোপনাঙ্গ! তারপর..

0
0

এএনএম নিউজ ডেস্ক : সাল ২০১৬, চীনে যৌনকর্মীর সঙ্গে সঙ্গমের সময় মৃত্যু বৃদ্ধের। যোনি সঙ্কোচনের ফলে সঙ্গমরত অবস্থাতেই আটকে পড়েছিলেন দু’জন। হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে তাঁদের আলাদা করতে হয়।

সাল ২০০১, এই ঘটনা মনে করিয়ে দিয়েছে ১৫ বছর আগের এক ঘটনাকে। মালয়শিয়ার ইপহ গ্রামে সঙ্গমের সময় ঠিক এভাবেই আটকে পড়েছিলেন এক দম্পতি। তাঁদেরও আলাদা করতে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হয়েছিল।

দুটো ঘটনাই শুনলে অবাক লাগলেও এমনটা কিন্তু ঘটতেই পারে বলে জানাচ্ছেন চিকিৎকরা। ঠিক কী কারণে হয় এমন? সুইস চিকিৎসক অ্যারিস্টোমেনিস এক্সাদাতিলোস জানাচ্ছেন, অনেকেই সেক্সের পর মাইগ্রেন, হার্টের সমস্যা, অ্যামনেশিয়ায় ভোগেন। কিন্তু সেক্সের পর যোনির মধ্যে পুরুষাঙ্গ আটকে যাওয়ার ঘটনাকে তিনি মিথ ছাড়া কিছুই ভাবতে রাজি নন।

অন্যদিকে নিজের জীবনেই এমন ঘটনার সাক্ষী হয়েছেন বলে জানিয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নারী বলেন, একদিন রাতে সেক্সের পর আমার স্বামী লিঙ্গ বের করতে পারছিলেন না। আমি ভেবেছিলাম ওরগ্যাজমের সময় আমার যোনির পেশী সঙ্কোচনের ফলে এমনটা হয়েছে।

একই রকম আরেকটি ঘটনার সাক্ষী দক্ষিণ ইংল্যান্ডের জন বলেন, মার্চেন্ট নেভিতে থাকার সময় এক জাপানি মহিলার সঙ্গে সম্পর্ক হয়েছিল। তাঁর সঙ্গে সেক্সের সময় একবার বুঝতে পারি, আমি বেরোতে পারছি না। প্রায় দু’তিন মিনিট আটকে ছিলাম। বলতে বলতে হেসে ফেলেছিলেন ৭৫ বছরের জন।

এমন ঘটনা একেবারেই বিরল জানিয়ে ব্রিটেনের যৌনরোগ বিশেষজ্ঞ জন ডিন বলেন, এসব ক্ষেত্রে পুরুষাঙ্গ যোনিতে প্রবেশের পর অতিরিক্ত ফুলে যায়। অরগ্যাজমের সময় যোনির পেশী সঙ্কোচন হয়। ফলে পুরুষাঙ্গের উপর চাপ প়ড়ে। একে ডাক্তারি পরিভাষায় বে ক্যাপটিভ পেনিস বলা হয়ে থাকে। যাঁদের পোষা কুকুর রয়েছে তাঁরা অনেক সময়ই পোষ্যদের ক্ষেত্রে এমন ঘটনার সাক্ষী হয়েছেন।

১৯০৮ সালে তাঁর সেক্সুয়াল লাইফ অফ আওয়ার টাইম বইতে ইওয়ান ব্লচ ক্যাপটিভ পেনিস ঘটনার উল্লেখ করেছিলেন। জার্মানির ব্রেমেন ডকে যোনির পেশী সঙ্কচোনের কারণে ক্যাপটিভ পেনিসের সমস্যায় পড়েন এক দম্পতি। তাঁদের জন্য ভিড় জমে গিয়েছিল ডকে। পর হাসাপাতালে নিয়ে গিয়ে তাঁদের আলাদা করা হয়।