এএনএম নিউজ ডেস্ক: ধুমধাম করে করছেন জন্মাষ্টমীর পুজো৷ বাড়িতে গোপাল রয়েছে৷ বছরের প্রতিটা দিনই তাঁর পুজার্চনা হয়৷ কিন্তু জন্মাষ্টমীতে বিশেষভাবে পুজিত হন শ্রীকৃষ্ণ৷ তাই তার ভোগও হয় অন্যদিনের থেকে অনেক আলাদা৷ কী কী থাকতেই হবে কৃষ্ণকে নিবেদিত ভোগে? যা না থাকলে ঘনিয়ে আসতে পারে বিদপ? জেনে নিন…

মাখান মিশ্রি- এই প্রসাদ গোপালকে দিতেই হবে৷ ছোট থেকেই কৃষ্ণ মাখন খেতে পছন্দ করেন, এমন গল্প তো অনেক শোনা যায়৷ তাই এই প্রসাদ জন্মাষ্টমীতে থাকতেই হবে৷ চরণামৃত-পুজোর পর এই প্রসাদ সকলেই খান৷ ঘি, দুধ, মধু , দই, গুড় দিয়ে তৈরি চরণামৃত শ্রীকৃষ্ণের মূল প্রসাদ হিসেবে নিবেদন করা বাঞ্ছনীয়৷ খির বা পায়েস৷ অনেক ভাবেই এই পায়েস বানানো যায়৷ তবে পুজোতে পায়েস থাকা বাধ্যতামূলক৷ পিঞ্জিরা লাড্ডু-মূলত নানা ধরণের বাদাম দিয়ে তৈরি লাড্ডু শ্রীকৃষ্ণকে ভোগ হিসেব নিবেদন করা হয়৷ সাবুদানা খিচুড়ি-সাবু দিয়ে তৈরি বিশেষ খিচুড়ি যা জন্মাষ্টমীর পুজোয় বিশেষ গুরুত্ব রাখে৷ লাড্ডু-লাড্ডু ছাড়া শ্রীকৃষ্ণের পুজো হবেই না৷ তাই জন্মষ্টমীতে লাড্ডু থাকতেই হবে৷