বাঙালির পৈতে বাড়িতে টেডি ডে পালন

0
44

হরি ঘোষ ,জামুড়িয়া :বাঙালির সংস্কারে এবার ভালোবাসার সপ্তাহ পালন হল জামুড়িয়ায়। টেডি ডে পালন হল পৈতে বাড়িতে। পৈতের দিন ছিল টেডি ডে। তাই কবজি ডুবিয়ে খাবার খেয়ে যাওযার পাশাপাশি টেডি বেয়ার উপহার নিয়ে বাড়ি ফিরলেন নিমন্ত্রিতরা। ট্রেন্ডের সঙ্গে মিলিয়ে পৈতের ভোজের দিনই তাই ভালোবাসার সপ্তাহের বিশেষ দিনটি পালন করলেন জামুড়িয়ায় ঘোষাল পরিবার।

রবিবার রোজ ডে দিয়ে উদযাপন শুরু হয়েছে। এরপরের দিন ভালোবাসার প্রস্তাব দিবস। এরপর রয়েছে চকলেট ড্, টেডি বিয়ার ড্, প্রমিস ডে বা প্রতিশ্রুতি দিবস, হাগ ডে বা আলিঙ্গন দিবস এরপর কিস ডে বা চুম্বন দিবস। সর্বশেষ ১৪ তারিখ বৃহস্পতিবার ভালোবাসা দিবস বা ভ্যালেন্টাইন ডে। ১৯০৩ সালে আইডিয়াল টয় কোম্পানি তৈরি করে টে়ডি বেয়ার।বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় এই সফট টয় নিয়ে উন্মদনা বেড়েই চলেছে। সোমবার সৌম ঘোষালের উপনয়ণ উপলক্ষ্যে রিসেপশন বা ভোজ ছিল। সৌমর বাবা হিমাদ্রি স্কুল শিক্ষক। তিনি ঘোষাল বলেন রিটার্ণ গিফ্ট দেওয়ার পরিকল্পনা একটা ছিলই। চাবির রিং, চকলেট অনেকরকম ভাবা হয়েছিল। তারপর দেখা গেল ওইদিন টেডি বেয়ার দিবস। কম বয়সি ছেলে মেয়েরা ওই সফট টয় উপহার দিচ্ছে একে অপরকে। উপহারটি আবার শিশুদেরও পছন্দের। তাই রঙবেরঙের টেডি উপহার দেওয়া হয় এদিন। সৌমর মা নিবেদিতা ঘোষাল বলেন বাঙালির খাবারের পাতেও তো পরিবর্তন হয়ে গেছে। মাছ ভাতের পরিবর্তে বিরিয়ানি বা চিলি চিকেন ফ্রাইরাইস পড়ছে উৎসব অনুষ্ঠানে। এই পরিবর্তন সর্বত্র। শিশু ও নিমন্ত্রিতরা খুশি হয়েছেন এতেই তাঁদের আনন্দ। তাঁরাও ট্রেন্ডের সঙ্গেই চলতে চান। তাই শুধু প্রেমিক-প্রেমিকাকে উপহার দিয়েই সম্পর্কে উষ্ণতা বা়ড়ে না, শিশুদেরও টেডি বেয়ার দিলে ভালোবাসা বাড়ে। সেই বার্তাই দিতে চেয়েছেন সৌমর বাবা ও মা।