বঙ্গবন্ধুর নববর্ষ

0
316

সাদরুল আহমেদ খানঃ  শুভ নববর্ষ ১৪২৮, করোনা মহামারীর জন্য লকডাউনের মধ্যেই চলছে আমাদের নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর চেষ্টা। কভিড-১৯ বাস্তবতা কে মেনে নিয়েই আমরা চলছি নিরাপদ আগামীর জন্য। তবে অনেকেই এ অবস্থায় হাপিয়ে উঠেছেন, অনেকটা বিরক্ত। কিন্তু আপনারা সবাই জানেন জাতির জনকের জীবনের বিরাট অংশ কেটে গেছে কারাগারের লকডাউনে। পরিবার পরিজন থেকে তিনি ছিলেন আইসলেশনে। কারাগারের রোজনামচা থেকে জাতীর পিতার এমনই একটি নববর্ষ অভিজ্ঞতা তুলে ধরলাম।

পয়লা বৈশাখ ১৩৭৪। ঢাকার ২৬ নাম্বার প্রিজন সেলে বন্দী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সকালে ঘুম থেকে জেগে দেখলেন নুর আলম সিদ্দিকী, নুরুল ইসলাম সহ কয়েকজন রাজ বন্দী ফুল নিয়ে হাজির নববর্ষ শুভেচ্ছা জানাতে। ২৬ নাম্বার সেল হাসপাতাল থেকে খন্দকার মোশতাকও ফুল পাঠালেন।

বঙ্গবন্ধুও ফুল পাঠালেন। ২০ নাম্বার সেলে থাকা হাজি দানেশ, আলতাফ হোসেন, হাতেম আলি খান, সিরাজুল হোসাইন খান, সায়েদুল রহমান। ১০ নাম্বার সেলে থাকা রফিক সাহেব,মিজানুর রহমান, জালাল উদ্দিন, আব্দুল মুমিন, ওবায়দুর রহমান, মহি উদ্দিন, সুলতান এবং হাসপাতালে থাকা খন্দকার মোশতাককে। ইচ্ছা থাকলেও ফুল পাঠানো সম্ভব হলনা রনেশ দাস গুপ্ত, শেখ ফজলুল হক মনি, হালিম, আব্দুল মান্নান ও ছাত্র নেতাদের। তাদের মুখে মুখে শুভেচছা পাঠালেন বঙ্গবন্ধু।

জেলের ভিতর যেন অনেক গুলো জেল। রাজনৈতিক বন্দীরা একে অপরের সঙ্গে দেখা করতে পারতেন না।পয়লা বৈশাখ বিকেলে পুরাতন ২০ নাম্বার সেলের সামনে নুর আলম সিদ্দিকী, নুরুল ইসলাম ও হানিফ খান কম্বল বিছিয়ে জলসার ব্যবস্থা করেছিলেন। বাবু চিত্তরঞ্জন, বিমল দত্ত, শাহ মুয়াজ্জেম সহ কয়েক জন কয়েদি ও বন্দী বসলেন। আয়োজকরা বঙ্গ বন্ধুকে সেখানে নিয়ে গেলেন। কয়েকজন সাধারণ কয়েদি গান পরিবেশন করলেন। সীমিত পরিসরে এই জলসা ছিল আনন্দঘন। কারাগার থেকেই দেশবাসীকে নববর্ষ শুভেচ্ছা জানালেন বঙ্গবন্ধু।

১০ নম্বার সেলের মিজানুর রহমান বঙ্গবন্ধু কে নিয়ে কবিতা লিখে পাঠালেন,
” আজকে নতুন প্রভাতে, নতুন বছরের আগমনে- মুজিব ভাই কে।
বন্ধু হও, শত্রু হও, যেখানে যে কেউ রউ
ক্ষমা কর আজিকার মতো,
পুরাতন বরষের সাথে,
পুরাতন অপরাধ হতে।”

প্রিয় পাঠক, আসুন জাতির জনকের ত্যাগের কথা মনে করে গত এ বছর আমরা বাইরে কোন অনুষ্ঠান করা থেকে বিরত থাকি। কারণ, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ নতুন করে আঘাত হেনেছে সারা দেশে। পয়লা বৈশাখের আনন্দ ঘরে বসেই উপভোগ করবো আমরা। নিজেরাও পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঘরোয়া পরিবেশে আনন্দ উপভোগ করবো।অতীতের সকল জঞ্জাল-গ্লানি ধুয়ে-মুছে আমরা নিজেদের পরিশুদ্ধ করবো। দৃপ্ত পায়ে এগিয়ে যাবো সামনের দিকে। গড়বো আলোকোজ্জ্বল ভবিষ্যত- এই হোক এবারের নতুন বছরের শপথ।


আরও খবরঃ http://anmnews.in/?p=198219 / http://anmnews.in/?p=198221
For more details visit anmnews.in